নিজস্ব প্রতিবেদক | সর্বশেষ আপডেট: বৃহস্পতিবার, 15th অক্টো., 2020

এক দশকে বাংলাদেশের বৈদেশিক ঋণ বেড়েছে ১২৫ শতাংশ

Share This
Tags
Print Friendly

বাংলাদেশে এক দশকের ব্যবধানে বৈদেশিক ঋণের দায় ১২৫ শতাংশের বেশি বেড়েছে। বিশ্বব্যাংকের হিসাবে ২০০৯ সালে বাংলাদেশের সর্বমোট বৈদেশিক ঋণের পরিমাণ ছিল ২৫৩৭ কোটি ২০ লাখ ডলার যা টাকার অংকে ২ লাখ ১৫ হাজার ৬৬২ কোটি টাকা। ২০১৯ সালে এর স্থিতি দাঁড়িয়েছে ৫৭০৮ কোটি ৮০ লাখ ডলার বা ৪ লাখ ৮৫ হাজার ২৪৮ কোটি টাকা। অর্থাত্ এই এক দশকে ঋণের পরিমাণ বেড়েছে ২ লাখ ৬৯ হাজার ৫৮৬ কোটি টাকা বা ১২৫ শতাংশ।

ওয়াশিংটনে সংস্থার সদর দপ্তর থেকে প্রকাশিত ‘আন্তর্জাতিক ঋণ পরিসংখ্যান-২০২১’ শিরোনামে প্রতিবেদনে বাংলাদেশসহ স্বল্প ও মধ্য আয়ের ১২০টি দেশের বিদেশি ঋণ পরিস্থিতি তুলে ধরা হয়েছে। বিশ্বব্যাংকের প্রতিবেদনে ২০১৯ সাল পর্যন্ত পরিসংখ্যান রয়েছে। চলতি বছরের হালনাগাদ পরিসংখ্যান ধরলে এই ঋণের পরিমাণ আরো বেশি হবে। করোনা অতিমারির প্রভাবে ইতিমধ্যে সরকারিভাবে বিদেশি উত্স থেকে ঋণ বেড়েছে।

তবে বিশ্লেষকরা বলছেন, স্থুল দেশজ আয়ের (জিএনআই) তুলনায় বিদেশি ঋণের অনুপাত এখনো ঝুঁকি মাত্রার নিচে রয়েছে। এজন্য ঋণের আকার বাড়লেও অর্থনীতির সক্ষমতা বিবেচনায় এটি বেশি নয়। ঋণ বাড়লেও গত তিন বছর ধরে জিএনআই-এর ১৮ শতাংশের মধ্যে রয়েছে বৈদেশিক ঋণের পরিমাণ।

বিশ্বব্যাংকের প্রতিবেদনে অন্যান্য দেশের বিদেশি ঋণ প্রসঙ্গে বলা হয়, ২০১৯ সাল শেষে স্বল্প এবং মধ্যম আয়ের ১২০ দেশের ঋণের পরিমাণ ৮ দশমিক ১ ট্রিলিয়ন ডলার ছাড়িয়ে গেছে। ২০১৯ সালে এক বছরের ব্যবধানে বৈদেশিক ঋণ সাড়ে ৯ শতাংশ বেড়েছে। যার পরিমাণ ৭৭৪ বিলিয়ন ডলার। বাংলাদেশি মুদ্রায় ৬৫ লাখ ৭৯ হাজার কোটি টাকা। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, করোনার প্রভাবে উন্নয়নশীল বিশ্বে ঋণ বেড়ে যাওয়ার বিষয়টি উদ্বেগের। দরিদ্র দেশগুলোর নতুন শর্তযুক্ত ঋণ গ্রহণ, সুদের হার এবং স্বচ্ছতার বিষয়গুলো নিয়ে শঙ্কা রয়েছে। কোভিডের আগেই দরিদ্র দেশগুলোর ঋণ বেড়ে যাওয়ার বিষয়ে উদ্বেগ ছিল।

প্রতিবেদনের বিষয়ে বিশ্বব্যাংকের প্রেসিডেন্ট ডেভিড ম্যালপাস উল্লেখ করেছেন, দীর্ঘমেয়াদে ঋণের স্থিতিশীলতা নির্ভর করছে ঋণ ও বিনিয়োগ স্বচ্ছতার ওপর। এখন সময় এসেছে দরিদ্র দেশগুলোর ঋণ সংকট মোকাবিলায় সমন্বিত উদ্যোগ নেওয়ার। প্রতিবেদন অনুযায়ী বাংলাদেশের স্থিতি হিসাবে ২০১৯ সাল পর্যন্ত ৫৭০৮ কোটি ৮০ লাখ ডলারের ঋণের মধ্যে সরকারি ঋণ ৪১০৩ কোটি ৭০ লাখ ডলার। আইএমএফের ঋণ রয়েছে ১৪১ কোটি ৪০ লাখ ডলার। প্রতিবেদনে সরাসরি বৈদেশিক বিনিয়োগ (এফডিআই), বেসরকারি খাতের বৈদেশিক ঋণ, স্বল্প ও দীর্ঘমেয়াদি ঋণসহ বিভিন্ন তথ্য উল্লেখ করা হয়েছে। এতে দেখা যায়, বাংলাদেশের তুলনামূলক দীর্ঘমেয়াদি ঋণের পরিমাণই বেশি। ২০১৯ সালে এফডিআই এসেছে ১৩৭ কোটি ১০ লাখ ডলার সমপরিমাণ। দীর্ঘমেয়াদি ঋণের স্থিতি ৪৫৯৩ কোটি ৭০ লাখ ডলার। বেসরকারি খাতে ঋণ মাত্র ৪৯০ কোটি ১০ লাখ ডলার।