নিজস্ব প্রতিবেদক | সর্বশেষ আপডেট: বুধবার, 17th জুলাই, 2019

তীব্র স্রোত: শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ীতে সহস্রাধিক গাড়ি আটকা

Share This
Tags
Print Friendly

Screen Shot 2019-07-17 at 10.07.21শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ী নৌরুটে পদ্মায় তীব্র ঘূর্ণিস্রোতের সৃষ্টি হয়েছে। এতে ওই রুটে ১১টি ফেরি পারাপার বন্ধ হয়ে গেছে। কোনোমতে ছয়টি ফেরি চলাচল করছে।

এ ছাড়া পদ্মায় অস্বাভাবিক পানি বৃদ্ধির ফলে গত চার দিন নৌরুটে ফেরি চলাচল ব্যাহত হচ্ছিল।

বিআইডব্লিউটিসি কাঁঠালবাড়ী ঘাটসূত্রে জানা যায়, পদ্মার অস্বাভাবিক পানিবৃদ্ধি পেয়ে শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ী নৌরুটের মঙ্গলবার তীব্র স্রোতের গতিবেগ আরও বেড়েছে। মূল নদী থেকে লৌহজং টার্নিংয়ের প্রবেশ মুখে সৃষ্টি হয়েছে ভয়াবহ ঘূর্ণিস্রোত।

 স্রোতের গতি বৃদ্ধি পাওয়ায় মঙ্গলবার সন্ধ্যায় এ রুটের সব ডাম্ব ফেরিসহ ১১টি ফেরি বন্ধ করে দেয় কর্তৃপক্ষ। বাকি ছয়টি ফেরি দিয়ে কোনোমতে যাত্রী ও যানবাহন পারাপার করা হচ্ছে।

জানা যায়, চলমান ফেরিগুলোও ঝুঁকি নিয়ে দীর্ঘসময় ব্যয় করে পদ্মা পাড়ি দিচ্ছে। এতে কাঁঠালবাড়ী ঘাটে ছয় শতাধিক যানবাহনসহ উভয় পাড়ে সহস্রাধিক যানবাহন আটকা পড়ে যাত্রী ও পরিবহন শ্রমিকরা চরম দুর্ভোগের শিকার হচ্ছেন।

গত চার দিনে লৌহজং ফেরিসহ নৌযানগুলোও ঘূর্ণিস্রোতে কোনোমতে চরের সঙ্গে ধাক্কা খেয়ে লৌহজং টার্নিং পাড়ি দিচ্ছে। শিমুলিয়া থেকে ছেড়ে আসা সব ফেরি, লঞ্চ ও স্পিডবোট উজান বেয়ে অতিরিক্ত সময় নিয়ে পদ্মা পাড়ি দিচ্ছে।

প্রতিটি ফেরি পারাপারে দীর্ঘ সময় বেশি লাগছে। লঞ্চ পারাপারেও বেশি সময় লাগছে। এতে সময় বেশি ব্যয়ের সঙ্গে সঙ্গে বাড়তি জ্বালানিও খরচ হচ্ছে। কমে গেছে ফেরির পারাপারের সংখ্যা।

বিআইডব্লিউটিসির কাঁঠালবাড়ী ঘাট ম্যানেজার আ. সালাম বলেন, পদ্মায় পানিবৃদ্ধির হার অস্বাভাবিক। ফলে লৌহজং টার্নিংয়ে ঘূর্ণিস্রোত আরও বেগবান হয়েছে। এতে ডাম্ব ফেরিসহ বেশিরভাগ ফেরি সন্ধ্যা থেকেই বন্ধ। পাঁচ-ছয়টি ফেরি কোনোমতে চললেও পারাপারে অনেক বেশি সময় লাগছে।