নিজস্ব প্রতিবেদক | সর্বশেষ আপডেট: বৃহস্পতিবার, 21st সেপ্টে., 2017

বৃটেনে বাংলাদেশী সমকামী দম্পতির বিয়ে

Print Friendly

বৃটেনের রাজধানী লন্ডনের নিউহ্যাম কাউন্সিলে বসবাসরত নবী হোসেন ও জহিরুল ইসলাম নামের এক বাংলাদেশী দম্পত্তি সাম্প্রতিক সময়ে সমকামী বিয়েতে আবদ্ধ হয়েছেন। জনাব হোসেন ও জনাব ইসলাম দম্পত্তির ঘনিষ্ঠ বন্ধু ইশতিয়াক হোসেন শাওনের বরাত দিয়ে জানা যায় গত ১৪-ই সেপ্টেম্বর ইং তারিখে এই দম্পত্তি নিউহ্যাম বাIMG_1605রাতে তাঁদের এই সিভিল বিয়ে সম্পন্ন করেন।

এই বিয়ের ক্ষেত্রে অত্যন্ত গোপনীয়তা ও নিরাপত্তাও নেয়া হয় কেননা লন্ডনের এই বারাটি মূলত মুসলমান অধ্যুষিত এবং এর অধিকাংশ জনসাধারণ মূলত পাকিস্তান, বাংলাদেশ, ভারত ও শ্রীলংকা থেকে আগত।

আমাদের লন্ডনের সংবাদদাতার পাঠানো এক প্রতিবেদনে জানা যায় যে, নবী হোসেন ও জহিরুল ইসলামের সম্পর্ক প্রায় সাড়ে তিন বছরের। দীর্ঘদিন তাঁরা একসাথে বসবাস করেছেন এবং অতঃপর তাঁরা এই বিয়ের সাহসী সিদ্ধান্ত নিয়ছেন। এই বিয়তে জহিরুল ও নবী হোসেনের ঘনিষ্ঠ বন্ধু বান্ধবরা উপস্থিত ছিলেন। তাঁরা সকলেই এই বিয়েকে স্বাগত জানান।

ইশতিয়াক হোসেন শাওন জানান, বাংলাদেশে সমকামীদের অধিকার প্রতিষ্ঠা হয়নি এবং এটা জাতীয় লজ্জার একটা ব্যাপার। সম্পূর্ণ প্রাকৃতিক একটি বিষয়কে আইনী বেড়াজালে আটকে দিয়ে বাংলাদেশ অসভ্য দেশের মতই আচরণ করেছে অথচ মুক্তিযুদ্ধের বাংলাদেশের সংবিধানে প্রতিটি ব্যাক্তির স্বাধীন চিন্তা –ভাবনা ও কর্ম করবার সুযোগ রয়েছে বলেই উল্লেখ রয়েছে।

জহিরুল ও নবী হোসেনের এই বিয়ে বাংলাদেশের পশ্চাৎমুখী সমাজের উপর একটি চপেটাঘাত বলেও মন্তব্য করেন শাওন। তিনি জানান এই দম্পত্তি ব্রিটেনে দীর্ঘদিন ধরে সমকামী অধিকার আদায়ের আন্দোলনের সাথে সম্পৃক্ত রয়েছেন এবং তাঁদের এতদিনের প্রেম ও ভালোবাসা আজ স্থায়ী রূপ নিয়েছে বলেই এই কমিউনিটির সকলেই অত্যন্ত আনন্দিত।

এদিকে এই বিয়ের ব্যাপার কোনো মন্তব্য রয়েছে কিনা এই ব্যাপারে জানতে আমাদের প্রতিবেদক আপটন পার্ক জামে মসজিদের ইমাম শায়খ আব্দাল কোরাইশীর সাথে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, “ইংল্যান্ডের আইনী ব্যবস্থা কিংবা তাদের সামাজিক ব্যবস্থার বিরুদ্ধে কিছু বলবার নেই তবে এইসলামে এই ধরনের বিয়ে সম্পূর্ণ হারাম ও তা ব্যাভিচারের নামান্তর। দু’জন মুসলমান ব্যাক্তি এই ধরনের ব্যাভিচারে লিপ্ত হয়েছেন জানতে পেরে আমি অত্যন্ত বিষ্মিত ও দুঃখিত হয়েছি। নিশ্চই আল্লাহ সবাইকে হেদায়েত দান করবেন”

জহিরুল ইসলাম ও নবী হোসেনের বিয়ের ঘটনাটি বাংলাদেশী কমিউনিটিতে বেশ আলোড়ন তুলেছে। সাধারণ জনসাধারন অনেকে যদিও এই ব্যাপারে আমাদের কাছে মন্তব্য করতে রাজী হননি কিন্ত তাদের মধ্যে এক ধরনের বিষ্ময়ের রেশ ছিলো। কেউ কেউ তো মন্তব্য করেই বসলেন যে, “এইসব নোংরামি কিভাবে দু’জন বাংলাদেশী করতে পারেন?”

উল্লেখ্য যে বাংলাদেশে সমকামী সম্পর্ক সম্পূর্ণ অবৈধ এবং পেনাল কোডের ৩৭৭ ধারার সম্পূর্ণ পরিপন্থী। এই বিয়ের ব্যাপারে নব দম্পত্তির সাথে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি বলে এই প্রতিবেদনে তাঁদের মন্তব্য দেয়া গেলোনা।

আজাদ/লন্ডন/শাবিটাঘ/১৭৮৪/পিবি-১২

 

Show Buttons
Share On Facebook
Share On Twitter
Share On Google Plus
Share On Pinterest
Share On Youtube
Hide Buttons